বৃহস্পতিবার , ১৩ জুন ২০২৪ | ৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. জাতীয়
  2. রাঙামাটি
  3. খাগড়াছড়ি
  4. বান্দরবান
  5. পর্যটন
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. রাজনীতি
  8. অর্থনীতি
  9. এনজিও
  10. উন্নয়ন খবর
  11. আইন ও অপরাধ
  12. ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী
  13. চাকরির খবর-দরপত্র বিজ্ঞপ্তি
  14. অন্যান্য
  15. কৃষি ও প্রকৃতি
  16. প্রযুক্তি বিশ্ব
  17. ক্রীড়া ও সংস্কৃতি
  18. শিক্ষাঙ্গন
  19. লাইফ স্টাইল
  20. সাহিত্য
  21. খোলা জানালা

কাপ্তাইয়ে পাহাড় ধ্বসের আজ ৭ বছর : এখনও ঝুঁকিতে বসবাস করছে বহু মানুষ

প্রতিবেদক
ঝুলন দত্ত, কাপ্তাই, রাঙামাটি
জুন ১৩, ২০২৪ ১০:০৭ পূর্বাহ্ণ

২০১৭ সালের ১৩ জুন। রাঙামাটি জেলার কাপ্তাইবাসীর জন্য দিনটি ছিল এক বিভীষিকাময় দিন। এর আগের দিন (১২ জুন) মধ্যরাত হতে মুষলধারে বৃষ্টি হচ্ছিল। টানা বর্ষনে তখন ঘরবন্দি প্রায়ই মানুষ। অতিবৃষ্টিতে সেইদিন কাপ্তাইয়ের সকল সড়ক পথ যান চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছিল।

১৩ জুন সকালে কাপ্তাইবাসী শুনলো ভয়াবহ পাহাড় ধ্বসের কথা। বিভিন্ন প্রান্ত হতে আসতে লাগলো মৃত্যুর কথা। সেইদিন সকালে প্রথম দু:সংবাদটি আসে ১ নং চন্দ্রঘোনা ইউনিয়নের মিতিঙ্গাছড়ি হতে। ভয়াবহ পাহাড় ধ্বসে সেইদিন ঐ এলাকার বসবাসরত নুরনবীসহ তার ছেলের গর্ভবতী স্ত্রী এবং তার শিশু পুত্র ঘটনাস্থলে মারা যায়।

ঘটনার পর পরই ফায়ার সার্ভিসসহ ঐ এলাকায় ছুটে যান তৎসময়ের কাপ্তাই উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দিলদার হোসেন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুল আলম এবং ১ নং চন্দ্রঘোনা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরী বেবী। এরপর একে একে ওয়াগ্গার মুরালীপাড়া, রাইখালির কারিগর পাড়া এবং চিৎমরম হতে পাহাড়ধ্বস ও মৃত্যুর খবর আসতে থাকে। সেইদিনের পাহাড় ধ্বসে কাপ্তাইয়ে প্রান হারায় সর্বমোট ১৮ জন। পাহাড়ী ঢ়লে তলিয়ে যায় শত শত একর সবজি ক্ষেত, বিনষ্ট হয় বহু ঘরবাড়ী। এখনোও সেই দিনের কথা কাপ্তাইয়ে জনগন মনে করে শিহরিত হয়ে উঠে।

আজ(১৩ জুন,২০২৪) কাপ্তাইয়ের পাহাড় ধ্বসের ৭ বছর হলো। এখনো কাপ্তাইয়ের অনেক জায়গায় ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করছে শত শত পরিবার। বিশেষ করে ৪ নং কাপ্তাই ইউনিয়নের ঢাকাইয়া কলোনিতে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করছে শত শত পরিবার। এইছাড়া ওয়াগ্গা ইউনিয়নের মুরালীপাড়া, রাইখালী ইউনিয়নের কারিগর পাড়া, তিনছড়ি, মিতিঙ্গাছড়িসহ দূর্গম অনেক জায়গায় ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করছে অনেক পরিবার। বর্ষা মৌসুমে অতিবৃষ্টি হলে এদেরকে প্রশাসনের পক্ষ হতে আশ্রয় কেন্দ্র নিয়ে আসা হলেও এই সব পরিবারগুলোকে স্থায়ীভাবে পূর্নবাসন করা যায় নাই।

৪ নং কাপ্তাই ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান জোবাউদা আক্তার লাভলী বলেন, কাপ্তাই ইউনিয়ন এর ঢাকাইয়া কলোনি এলাকায় এখনোও ঝুঁকিতে বসবাস করছে বহু মানুষ। যখন অতি বৃষ্টি হয়, তখন পাহাড় ধ্বসের আশংকায় তাঁরা নিকটবর্তী আশ্রয় কেন্দ্রে আসেন। যদি এসব লোকদের স্থায়ী ভাবে কোন জায়গায় পূর্ণবাসন করা যেতো তাহলে সমস্যার সমাধান হতো।

কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো মহিউদ্দিন বলেন,  ৪ নং কাপ্তাই ইউনিয়ন এর ঢাকাইয়া কলোনি সহ উপজেলার রাইখালী ও ওয়াগ্গা ইউনিয়নে এখনো পাহাড়ের পাদদেশে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাস করছে বহু পরিবার। প্রশাসনের পক্ষ হতে আমরা প্রায়ই এইসব এলাকায় গিয়ে জনগণকে পাহাড়ের পাদদেশে বসবাস না করার জন্য অনুরোধ করি। বিশেষ করে অতি বৃষ্টি হলে তখন পাহাড় ধ্বসের আশংকা থেকে যায়। তখন আমরা ঝুঁকিপূর্ণ বসবাসকারীদের নিকটস্থ আশ্রয় কেন্দ্রে নিয়ে আসি এবং তাদের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করি। যদি ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাসকারীরা দূর্যোগ এর আগে নিরাপদ স্থানে চলে আসে তাহলে জানমালের ক্ষয়ক্ষতি এড়ানো সম্ভব।

সর্বশেষ - আইন ও অপরাধ

আপনার জন্য নির্বাচিত

জরুরি ভিত্তিতে ৩০ জন লোক নিয়োগ করবে গ্রীনহিল

আমতলী ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের ত্রি বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত 

কাপ্তাই রাইখালী ইউনিয়নে ভোট কেন্দ্র পরিদর্শনে ইউএনও 

মানিকছড়িতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে বাক প্রতিবন্ধী শিশুর মৃত্যু

দেশে সর্ববৃহৎ সিংহ শয্যা বুদ্ধ মূর্তি উদ্বোধন / জুরাছড়িতে হতে যাচ্ছে আর্ন্তজাতিক মানের বৌদ্ধ ধর্মীয় অনুষ্ঠান

কাপ্তাইয়ে মাশরুম চাষ করে অনিল মারমার লাখ টাকা আয়

রাঙামাটিতে শিশু ধর্ষণচেষ্টা ও হত্যা মামলায় আসামিকে মৃত্যুদন্ডাদেশ

রাঙামাটির মানিকছড়িতে ১২২ পিস ইয়াবাসহ আটক মাদক কারবারি টিপু শাহ

বিলাইছড়ি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ 

রামগড়ে বিজিবির ইফতার ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

%d bloggers like this: