বৃহস্পতিবার , ১৪ জুলাই ২০২২ | ৬ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. জাতীয়
  2. রাঙামাটি
  3. খাগড়াছড়ি
  4. বান্দরবান
  5. পর্যটন
  6. এক্সক্লুসিভ
  7. রাজনীতি
  8. অর্থনীতি
  9. এনজিও
  10. উন্নয়ন খবর
  11. আইন ও অপরাধ
  12. ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী
  13. চাকরির খবর-দরপত্র বিজ্ঞপ্তি
  14. অন্যান্য
  15. কৃষি ও প্রকৃতি
  16. প্রযুক্তি বিশ্ব
  17. ক্রীড়া ও সংস্কৃতি
  18. শিক্ষাঙ্গন
  19. লাইফ স্টাইল
  20. সাহিত্য
  21. খোলা জানালা

লংগদু ইউপির উপ নির্বাচন / আ’লীগ প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র বাতিল; হতাশ দলটির নেতাকর্মীরা

প্রতিবেদক
সুশীল প্রসাদ চাকমা, রাঙামাটি
জুলাই ১৪, ২০২২ ৮:০০ অপরাহ্ণ

রাঙামাটির লংগদু উপজেলার লংগদু সদর ইউনিয়ন পরিষদে (ইউপি) চেয়ারম্যান পদে উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থী রকি চাকমার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে। এতে হতাশ দলটির স্থানীয় নেতাকর্মীরা। চেয়ারম্যান পদ শুন্য হওয়ায় ওই ইউপিতে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৭ জুলাই।

গত ৩০ জুন বাছাইয়ে প্রস্তাবকারী ও সমর্থনকারীর স্বাক্ষর জাল প্রমাণিত হওয়ায় আ’লীগ প্রার্থী রকি চাকমার মনোনয়নপত্র সরাসরি বাতিল হয়ে যায় বলে জানা গেছে।
এদিকে বিএনপি এবং আঞ্চলিক দল মনোনীত একাধিক প্রতিদ্বন্দী প্রার্থীর কাছ থেকে আর্থিক সুবিধা নিয়ে তাদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে আওয়ামী লীগের রকি চাকমা কৌশলে তার নিজের প্রার্থিতা বাতিল করিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। দলের একাধিক নেতাকর্মী এমনটার অভিযোগ করেন। দলীয় প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ায় নির্বাচন নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় পড়েছেন নেতাকর্মীরা।

তবে নিজের প্রার্থিতা বাতিল হওয়ার বিষয়টি  স্বীকার করলেও তা নিয়ে বিস্তারিত বলতে রাজি হননি রকি চাকমা। এ বিষয়ে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, এখন তিনি ধর্মীয় কাজে ব্যস্ত, তাই পরে কথা বলব।
লংগদু উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. জমির উদ্দিন বলেন, স্বাক্ষর মিল না থাকায় লংগদু সদর ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থী রকি চাকমার মনোনয়নপত্র বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। তাছাড়া তার প্রস্তাবকারী ও সমর্থনকারী উভয়ে সরাসরি গিয়ে স্বাক্ষর তাদের নয় বলে জানিয়েছেন। পরবর্তীতে এ প্রার্থী আর কোনো আপিলও করেননি।

দলীয় সূত্রে জানা যায়, জেলা আওয়ামী লীগ পাঠানো প্রস্তাবে দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার  স্বাক্ষরে লংগদু সদর ইউপি উপনির্বাচনে রকি চাকমাকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দেয় দলটি। কিন্তু লংগদু উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটানিং অফিসারের নিকট তার জমা দেওয়া মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাইয়ে প্রস্তাবকারী ও সমর্থনকারীর  স্বাক্ষর জাল বলে প্রমাণিত হয়।

তার নাম দেওয়া প্রস্তাবকারী নিন্টু চাকমা ও সমর্থনকারী বাধি চাকমা উভয়ে সরাসরি করে উপজেলা নির্বাচন অফিসে গিয়ে বলেন, রকি চাকমার মনোনয়নপত্রে দেওয়া  স্বাক্ষরগুলো তাদের নিজেদের নয়। ফলে আওয়ামী লীগ প্রার্থী রকি চাকমার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে যায়। এ নিয়ে পরে কোনো আপিলও করেননি রকি।
এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে লংগদু উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল দাশ বাবু বলেন, প্রস্তাবকারী ও সমর্থনকারীর জাল  স্বাক্ষর করায় তাদের প্রার্থী রকি চাকমার মনোনয়নপত্র বাতিল হয়ে গেছে।

প্রস্তাবকারী ও সমর্থনকারী উভয়ে সরাসরি গিয়ে তারা কেউই  স্বাক্ষর দেননি বলে দাবি করেন। ফলে আপিলের সুযোগও হয়নি।

দলীয় মনোনীত প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ার পর দল থেকে পরবর্তী আর কোনো সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়নি।
এদিকে লংগদু সদর ইউপি উপনির্বাচনে দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থীর ভুলে তার প্রার্থিতা বাতিল হওয়ায় দলের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর ও অপমাননাকর বলে মন্তব্য করছেন একাধিক নেতাকর্মী।

এ বিষয়ে লংগদু উপজেলার স্থায়ী বাসিন্দা ও জেলা যুবলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য শাহ নজরুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, প্রথমত দলীয় প্রার্থী বাছাইয়ে ভুল ছিল। তাই প্রার্থী দিয়েও বাধ্য হয়ে হার মানতে হচ্ছে। যোগ্য প্রার্থী দেওয়া হলে দলীয় প্রার্থীর জয় নিশ্চিত হতো। সেখানে যাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে, তিনি মূলত বিএনপি ও আঞ্চলিক দল মনোনীত একাধিক প্রতিদ্বন্ধির সঙ্গে হাত মিলিয়ে কৌশলে নিজের প্রার্থিতা বাতিল করিয়ে নির্বাচন থেকে সরে গেছেন। এজন্য পর্যাপ্ত আর্থিক সুবিধা নিয়েছেন তিনি। এর ফলে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা  স্বাক্ষরিত দলীয় মনোনয়নপত্রসহ নৌকা প্রতীককে চরম অবমাননা করা হয়েছে বলে আমি মনে করি। তার এ ধরনের কর্মকান্ড জনগণের মধ্যে দলের ব্যাপারে বিরুপ প্রভাব ফেলছে।

প্রার্থী নিজেই ইচ্ছাকৃতভাবে প্রস্তাবকারী ও সমর্থনকারীর  স্বাক্ষর জাল করেছেন বলে আমরা প্রমাণ পেয়েছি। এমন অপরাধে তদন্ত সাপেক্ষে তার বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য দলীয় শীর্ষ নেতাদের কাছে উদাত্ত আহবান জানাই।

ফোনে যোগাযোগ করা হলে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. মুছা মাতব্বর বলেন, মনোনীত প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল হওয়ায় লংগদু সদর ইউপি উপনির্বাচনে আমাদের আর চেয়ারম্যান প্রার্থী নেই। এজন্য দলের নিশ্চই ক্ষতি হয়েছে। ভবিষ্যতে কোনো নির্বাচনে প্রার্থী বাছাইয়ে আমরা অবশ্যই সতর্কতার অবলম্বন করব।

এদিকে লংগদু সদর ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে  স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্ধিতা করছেন গত সপ্তম ধাপে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রতন কুমার চাকমা, উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা সাইফুল ইসলাম, উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি জহুরুল আলী মিলন, জেএসএস (এমএন লারমা)  দলের বিক্রম চাকমা বলি ও সাবেক জেএসএস সদস্য প্রণব চাকমা।

 

সর্বশেষ - আইন ও অপরাধ

আপনার জন্য নির্বাচিত

অপহৃত ইউপিডিএফ সদস্য উদ্ধারের ঘটনা নাটক- ইউপিডিএফ

রুমায় বিএনপির বিক্ষোভ সমাবেশ

কাপ্তাই ও রাজস্থলী আ.লীগ, বিলাইছড়িতে জেএসএস প্রার্থী চেয়ারম্যান নির্বাচিত

লংগদুর আর এস উচ্চ বিদ্যালয়ে পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান সম্পন্ন

কাপ্তাই উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার নতুন অফিস উদ্বোধন 

কাপ্তাইয়ে পলাতক আসামী গ্রেফতার 

কাপ্তাইয়ের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রওশন আরা রব জেলার শ্রেষ্ঠ সার্কেল অফিসার নির্বাচিত

কাচালং বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা ও বার্ষিক ক্রীড়া সম্পন্ন

দেশ বার্তার প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত  / সমাজকে সঠিক বার্তা দিতে দেশ বার্তা পত্রিকা অগ্রনী ভূমিকা পালন করবে

বাঘাইছড়িতে অবৈধ এমএমসি ও কেবিএম ইটভাটা বন্ধ করল প্রশাসন 

%d bloggers like this: