শনিবার, মার্চ ২৫News That Matters

কাপ্তাইয়ে আলোচিত সুমি হত্যা, প্রধান আসামি মহিবুল গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন:

রাঙামাটি কাপ্তাইয়ের আলোচিত হাসিনা আক্তার সুমি হত্যামামলার প্রধান আসামি মহিবুলকে (২৫) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রোববার (২০মার্চ) বিকেলে গ্রেফতারের বিষয়ে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ তথ্য জানান রাঙামাটি পুলিশ সুপার মীর মোদদাছছের হোসেন।

পুলিশ সুপার বলেন- মাত্র আট দিনের মধ্যে পুলিশের বিশেষ তৎপরতায় সুমি হত্যার প্রধান আসামি মুহিবুলকে নেত্রকোনা জেলার মদন থানাধীন কাইটাইল এলাকায় চট্টগ্রামের র‌্যাব-৭ গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত আসামী কাপ্তাই উপজেলার কাপ্তাই ইউনিয়নের ৬ওয়ার্ডের জাকির হোসেন ‘স’ মিল মুরগীর টিলা নামক এলাকার মনির উদ্দিন ভাণ্ডারীর ছেলে।

এসপি মীর মোদদাছছের হোসেন আরও বলেন- প্রেম সংক্রান্ত এবং বিয়ে প্রত্যাখানের ফলে নির্মম এবং পাথর দিয়ে আঘাত করে নৃশংসভাবে সুমিকে হত্যা করে। সুমি ও মহিবুল এক সময় মাদক ব্যবসা আদান প্রদান এবং দু’জনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ঘটে। এক পর্যায়ে মহিবুল সুমিকে বিয়ের কথা বলে টাকাসহ শারীরিক বিভিন্ন সুবিধা ভোগ করে। কিন্তু মহিবুলকে তার পরিবার পারিবারিকভাবে চলতি মাসের ১৮ মার্চ চট্টগ্রামের রাঙ্গুনীয়ার রাণীরহাট এলাকায় বিয়ে দেয়ার জন্য দিন তারিখ ধার্য করে।

ওই বিয়ের খবর সুমি জানতে পারে। বিয়ের বিষয় নিয়ে মহিবুল ও সুমির মাঝে বিএফআইডিসি স্কুল মাঠে কথাকাটা কাটি হয় এবং দু’জনের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এক পর্যায়ে মহিবুল তার প্রেমিকা সুমিকে ইট, পাথর দিয়ে মাথা ও মুখে আঘাত করে করে হত্যা করে এবং দিয়াসলাইয়ের আগুনে পুড়িয়ে ১১ তারিখের কোন এক সময় তাকে বিএফআইডিসি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিত্যাক্ত শৌচাগারে ফেলে দেয়। মুহিবুল জবানবন্দিতে এসব কথা নিজ মুখে স্বীকার করে বলে এসপি জানান।

উল্লেখ্য ১২মার্চ বিকেলে কাপ্তাই বিএফআইডিসির সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিত্যক্ত শৌচাগার থেকে হাসিনা আক্তার সুমির পোড়া মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সুমির মা আমেনা বেগম ১৩মার্চ বাদি হয়ে তিনজন ও আরো অজ্ঞাত নামা ৫ জনের নামে কাপ্তাই থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *